রাজশাহী রেঞ্জে ও জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ বাঘা থানার সাজ্জাদ হোসেন সাজু

0

এম ইসলাম দিলদার,বাঘা,রাজশাহীঃ বাংলাদেশ পুলিশ রাজশাহী রেঞ্জে ও জেলার পঞ্চম বারের শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ নির্বাচিত হয়েছেন বাঘা থানার (ওসি) মো,সাজ্জাদ হোসেন সাজু।

সোমবার (১২ সেপ্টেম্বর ) দুপুরে রাজশাহী বিভাগের ডিআইজি কার্যালয়ের কন্ফারেন্স রুমে শ্রেষ্ঠত্বের পুরুস্কার স্বরূপ সাজ্জাদ হোসেন কে সম্মাননা ক্রেষ্ট ও স্মারক প্রদান করা হয়।

আইন শৃঙ্খলার উন্নয়ন,অস্ত্র, মাদক উদ্ধার, ডাকাতি ও হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন, পুলিশি সেবা জনগণের দোরগোড়াই পৌঁছে দেয়াসহ পুলিশ কর্মকর্তা হিসেবে বাঘা উপজেলায় বিভিন্ন স্তরে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার জন্য তিনি রাজশাহী রেঞ্জের এবং জেলার পঞ্চম বারের মত শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ ওসি নির্বাচিত হয়েছেন মো, সাজ্জাদ হোসেন সাজু।
রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি জনাব আব্দুল বাতেন বিপিএম ও পিপিএম (বার), জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন বিপিএম (বার) বাঘা থানার ওসি সাজ্জাদ হোসেনের হাতে শ্রেষ্ঠত্বের পুরস্কার তুলে দেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন,রাজশাহীর জেলা পুলিশ সুপার এ বি এম মাসুদ হোসেন বি পি এম(বার) সহ ৮ টি জেলার পুলিশ সুপার ও বিভাগীয় পুলিশের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাগন।

এবিষয়ে বাঘা থানার অফিসার ইনচার্জ রাজশাহী রেঞ্জের এবং জেলার পঞ্চম বারের শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো, সাজ্জাদ হোসেন সাজু জানান, জনাব এবিএম মাসুদ হোসেন বিপিএম(বার) স্যার এর দিক-নির্দেশনায় ও সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতা এবং বাঘা থানা আমার কর্মস্থলের সকল অফিসারবৃন্দ ও কনস্টেবলদের সাথে নিয়ে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি। রাজশাহী রেঞ্জের প্রথম এবং রাজশাহী জেলার পঞ্চম বারের মত শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ হওয়াতে আমি আনন্দিত ও সকলের জন্য শুভ কামনা জানাচ্ছি। এই পুরস্কার আমার একার নয় সকলের কাজের ফসল এই পুরুস্কার বাঘা থানার সকলের। মনরম সবুজে ঘেরা রাজশাহী রেঞ্জের এবং জেলার পঞ্চম বারের শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ পুরুস্কৃত সার্টিফিকেট টি আগামী দিনের কাজের ক্ষেত্রে আমাকে আরও প্রেরণা জোগাবে বলে তিনি সকলের দোয়া,আশির্বাদ ও সহযোগীতা কামনা করেন।

উল্লেখ্য ঃ বাঘা থানার ৩৯ বছর বয়সে এই প্রথম রাজশাহী রেঞ্জের এবং জেলার পঞ্চম বারের শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জ পুরুস্কৃত ক্রেষ্ট ও সার্টিফিকেট পেয়েছেন ওসি মো,সাজ্জাদ হোসেন সাজু।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে