রাজশাহী মোহনপুরে অধ্যক্ষের সনদ জাল প্রমাণিত হওয়ায় বেতন ফেরত দেওয়ার নির্দেশ

0

রাজশাহী ব্যুরো : রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার কেশরহাট টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট ইনস্টিটিউটের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. অাশরাফ অালী ভূয়া জাল সনদ দিয়ে জালিয়াতির মাধ্যমে দীর্ঘ সময় ধরে শিক্ষকতা করে আসছিলেন। সনদ জাল প্রমাণিত হওয়ায় ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. অাশরাফ অালীর সরকারি অংশের বেতন-ভাতা (এমপিও) বন্ধ করেছে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর। গত ২০২১ সালের ২৮ নভেম্বর কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের এক চিঠিতে ওই সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়েছে। কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক বিমল কুমার মিশ্র এর স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে অভিযুক্ত শিক্ষক মো. অাশরাফ অালীকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্বে থেকে অব্যাহতি দিতে গভর্ণিং বডির সভাপতিকে চিঠির মাধ্যমে জানানো হয়েছে। এক সাথে উত্তোলন করা বেতন-ভাতা সমুদয় অর্থ রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা প্রদান করতে বলা হয়েছে। কিন্তু মো. অাশরাফ অালী ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্বে থেকে প্রতিষ্ঠানের সকল কাযক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। জরুরি ভিত্তিতে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. অাশরাফ অালীকে প্রতিষ্ঠান থেকে বিতাড়িত করে নতুন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষেকে দায়িত্ব প্রদান ও ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. অাশরাফ অালীর বিরুদ্ধে অাইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য রাজশাহী জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নিবাহী অফিসার এবং অত্র স্কুল এন্ড কলেজ সভাপতির কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন কেশরহাট পৌরসভা নাগরিক কমিটির সভাপতি মো. অালফোর রহমান।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের জানুয়ারি মাস থেকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. অাশরাফ অালী বেতন ভাতা বন্ধ করা হয়েছে। কলেজ পরিচালনা কমিটির বেশি ভাগ সদস্য অাত্মীয় স্বজন ও নিজস্ব হওয়ার তার বিরুদ্ধে এখন পযন্ত কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্মচারীদের জিম্মি করে সকল কাযক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। নতুন করে গোপনভাবে কমিটি গঠনের চেষ্টা করা হচ্ছে। এতে করে প্রতিষ্ঠানের কাযক্রম ব্যাহত হচ্ছে। ভূয়া ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. অাশরাফ অালীকে অাইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন নাগরিক কমিটির সভাপতি মো. অালফোর রহমান।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে